রসায়ন

নিউক্লিওফাইল কি? কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের সুবিধা ও অসুবিধা।

যেসব বিকারক বিক্রিয়াকালে নিউক্লিয়াসের প্রতি আকৃষ্ট হয় এবং ইলেকট্রন দান করে তাদেরকে কেন্দ্রাকর্ষী বিকারক বা নিউক্লিওফাইল বলে।

কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের সুবিধা ও অসুবিধা

বিশ্বের অনেক দেশের বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলোতে বিদ্যুৎ উৎপন্ন হয় তাপীয় পদ্ধতিতে। ২০০৭ সালে বিশ্বে সক্রিয় কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের সংখ্যা ছিল ৫০,০০০। এদের মধ্যে জীবান্ম-জ্বালানী যেমন কয়লা, প্রাকৃতিক গ্যাস উল্লেখযোগ্য। তার মধ্যে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের বেশ কিছু সুবিধা ও অসুবিধা রয়েছে। যেমন–
সুবিধা:

  • অনেক দেশে কয়লা খনি থাকায় জ্বালানী হিসেবে কয়লার দাম কম।
  • এক দেশ হতে অন্য দেশে কয়লা পরিবহনে ট্রাক, জাহাজ ব্যবহার করা যায়। ফলে পরিবহন খরচ প্রাকৃতিক গ্যাসের তুলনায় কম।
  • নিউক্লিয়ার পাওয়ার স্টেশনের শক্তি উৎপাদনের কর্মক্ষমতা যেখানে ৩০-৩২% সেখানে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের শক্তি উৎপাদনের কর্মক্ষমতা বেশি ৩৩%-৪৮%।
  • তুলনামূলকভাবে এর উৎপাদন খরচ কম। এক হিসাবে দেখা যায়, 1 Kw কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য খরচ পড়ে ৭৫০-১০০০ পাউন্ড যেখানে বায়ু হতে বিদ্যুৎ উৎপাদনের খরচ প্রায় দ্বিগুণ।

অসুবিধা:

  • কয়লার গুড়া পরিবেশকে দূষিত করে।
  • কয়লা দহনের পর উৎপন্ন CO2, SO2 ও NOx বায়ু দূষণ ঘটায় ও অম্ল-বৃষ্টির দ্বারা পরিবেশের ক্ষতি সাধ করে।
  • কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে যে, CO2 গ্যাস নির্গত হয় তা প্রাকৃতিক গ্যাস ব্যবহারকারী বিদ্যুৎ কেন্দ্রের তুলনায় প্রায় ৩ গুণ। সুতরাং CO2 এর দ্বারা বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি পায়।
  • বর্জ তাপ (waste heat) বায়ুতে মিশে অথবা নদী হ্রদের পানিকে উত্তপ্ত করে পরিবেশের উপর বিরূপ প্রভাব ফেলে।
  • কয়লা দহনের আর একটি অসুবিধা হচ্ছে পার্টিকুলেট (particulate) পদার্থের নিঃসরণ যার মারাত্মক প্রভাব রয়েছে জনস্বাস্থ্যে।
  • কয়লা দহনের পর যে কয়লা ভষ্ম পাওয়া যায় তাতে তেজস্ক্রিয় পদার্থ, আর্সেনিক ও সিসা থাকে। যা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button