প্রশ্ন ও উত্তর

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক প্রশ্ন ও উত্তর (পর্ব-৪)

প্রশ্ন-১। শিফট রেজিস্টার কাকে বলে?

উত্তরঃ যে রেজিস্টার বাইনারি বিট ধারণ করার পাশাপাশি ধারণ করা বিটকে ডানদিকে বা বামদিকে বা উভয়দিকে সরাতে পারে তাকে শিফট রেজিস্টার বলে।

প্রশ্ন-২। ক্রায়োগান কি?

উত্তরঃ ক্রায়োসার্জারি চিকিৎসায় যে মেশিনের সাহায্যে স্প্রের মত করে তরল নাইট্রোজেন কার্বন ডাই-অক্সাইড, আর্গন ও ডাই মিথাইল ইথার-প্রোপেন ইত্যাদি ব্যবহার করা হয় তাকে ক্রায়োগান বলে।

প্রশ্ন-৩। আচরণগত বায়োমেট্রিক্স কি?

উত্তরঃ আচরণগত বায়োমেট্রিক্স হচ্ছে এক ধরনের কৌশল বা প্রযুক্তি যার মাধ্যমে মানুষের আচার-আচারণ, বৈশিষ্ট্য, গুণাগুণ, ব্যক্তিত্ব প্রভৃতি দ্বারা নির্দিষ্ট ব্যক্তিকে চিহ্নিত বা শনাক্ত করা যায়।

প্রশ্ন-৪। ন্যানোটেক কি?

উত্তরঃ ন্যানোটেকনোলজি বা ন্যানোপ্রযুক্তিকে সংক্ষেপে ন্যানোটেক বলা হয়। এটি পদার্থকে আণবিক পর্যায়ে পরিবর্তন ও নিয়ন্ত্রণ করবার বিদ্যা।

প্রশ্ন-৫। সংখ্যা পদ্ধতির বেজ কি?

উত্তরঃ কোনো সংখ্যা পদ্ধতির বেজ বা ভিত্তি হচ্ছে ঐ সংখ্যা পদ্ধতিতে ব্যবহৃত মৌলিক চিহ্ন সমূহের মোট সংখ্যা। যেমন- বাইনারি সংখ্যা পদ্ধতির বেজ বা ভিত্তি ২। কারণ এ পদ্ধতিতে মোট দুইটি মৌলিক চিহ্ন রয়েছে। যথা- ০ ও ১।

প্রশ্ন-৬। ই-লার্নিং কী?

উত্তরঃ ই-লার্নিং শব্দটি ইলেকট্রনিক লার্নিং কথাটির সংক্ষিপ্ত রূপ। ই-লার্নিং বলতে আমরা পাঠদান করার জন্যে সিডি রম, ইন্টারনেট, ব্যক্তিগত নেটওয়ার্ক কিংবা টেলিভিশন চ্যানেল ব্যবহার করার পদ্ধতিকে বুঝে থাকি।

প্রশ্ন-৭। ইভিএম (ইলেকট্রনিক্স ভোটিং) কি?

উত্তরঃ ইভিএম হচ্ছে ব্যালটের পরিবর্তে মেশিনের মাধ্যমে ভোট দেওয়ার পদ্ধতি। এতে একটি মেশিনে প্রায় চার হাজারটি পর্যন্ত ভোট দেওয়া যায়। বাটন চাপ দিয়ে অক্ষরজ্ঞানহীন ব্যক্তিও ভোট দিতে পারে। পৃথিবীর সকল উন্নত দেশে এ পদ্ধতিতে ভোট প্রদান করা হয়।

প্রশ্ন-৮। সাইবার অপরাধ বলতে কী বুঝ?

উত্তরঃ সাইবার অপরাধ বলতে আমরা সাধারণত সাইবার স্পেস অর্থাৎ ইন্টারনেটকে কেন্দ্র করে যে সকল কম্পিউটার ক্রাইম সংঘটিত হয় তাদেরকে বুঝি। সাইবার অপরাধ বিভিন্ন ধরনের হতে পারে।

প্রশ্ন-৯। আইপি অ্যাড্রেস কি?

উত্তরঃ আইপি অ্যাড্রেস হলো এক ধরনের আইডেন্টিফিকেশন নাম্বার। নেটওয়ার্ক তথা ইন্টারনেটের সাথে সংযুক্ত প্রতিটি কম্পিউটারের একটি আলাদা আইডেন্টিফিকেশন নাম্বার বা ঠিকানা থাকে। এ ঠিকানাকে আইপি অ্যাড্রেস বলে।

প্রশ্ন-১০। আইএসডি (ISD) কি?

উত্তরঃ International Subscriber Dialing বা ISD এমন একটি সার্ভিস, যার মাধ্যমে স্যাটেলাইট ব্যবহার করে এক দেশের ব্যবহারকারী অন্য দেশের ব্যবহারকারীর সাথে কথা বলতে পারেন।

প্রশ্ন-১১। Social Media বলতে কি বুঝায়?

উত্তরঃ Social Media বলতে এমন এক ব্যবস্থাকে বুঝায় যেখানে Internet ব্যবহার করে পরস্পরের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করা যায়। Facebook, Twitter, Skype ইত্যাদি Social Media এর উদাহরণ।

প্রশ্ন-১২। Dropbox কি?

উত্তরঃ Dropbox হচ্ছে একটি সেবার নাম। এখানে যে কেউ অ্যাকাউন্ট খুলে তার অ্যাকাউন্টে তথ্য রাখতে পারে। Dropbox যেকোনো সময় পৃথিবীর যেকোনো জায়গা থেকে ইন্টারনেটের মাধ্যমে ব্যবহার করা যায়।

প্রশ্ন-১৩। আন অর্ডারড লিস্ট কি? আন অর্ডারড লিস্টকে চিহ্নিত করার উপায় কোনটি?

উত্তরঃ যে লিস্ট কোনো সিম্বল দিয়ে শুরু হয় তাকে আন-অর্ডারড লিস্ট বলে। যখন কোনো লিস্টে কোনো সংখ্যা অর্থাৎ ক্রমবাচক কিছু না থাকে তখন বুঝতে হবে লিস্টটি আন অর্ডারড লিস্ট।

প্রশ্ন-১৪। যোগাযোগ যন্ত্র কাকে বলে? যোগাযোগ যন্ত্রের উদাহরণ

উত্তরঃ যে সকল যন্ত্রের মাধ্যমে যোগাযোগ করা হয়, তাদেরকে যোগাযোগ যন্ত্র (Communication Device) বলে। যেমন– বেতার, টেলিভিশন (Television), মোবাইল ফোন (Mobile Phone), টেলিফোন (Telephone) ইত্যাদি।

প্রশ্ন-১৫। প্রোফাইল (Profile) কাকে বলে?

উত্তরঃ সামাজিক যোগাযোগের সাইটগুলোতে প্রত্যেক ব্যবহারকারীর পরিচিতিমূলক একটি বিশেষায়িত ওয়েবপেজকে ব্যবহারকারীর প্রোফাইল (Profile) বলে।

প্রশ্ন-১৬। দ্বিমুখী যোগাযোগ পদ্ধতি কাকে বলে?

উত্তরঃ যখন একাধিক ব্যক্তি একই সময়ে একে অপরের সাথে যোগাযোগ করতে পারে তখন তাকে দ্বিমুখী যোগাযোগ পদ্ধতি বলে। যেমন– মোবাইল ফোন, টেলিফোন।

প্রশ্ন-১৭। জিও স্টেশনারি স্যাটেলাইট কাকে বলে?

উত্তরঃ যে সকল স্যাটেলাইটকে ভূপৃষ্ঠ থেকে নির্দিষ্ট উচ্চতায় অর্থাৎ ৩৬,০০০ কিলোমিটার উপরে একটি নির্দিষ্ট কক্ষপথে রাখতে হয় তাকে জিও স্টেশনারি স্যাটেলাইট বলে। এটি ২৪ ঘণ্টায় পৃথিবীকে প্রদক্ষিণ করে এবং পৃথিবীতে সিগন্যাল পাঠায়। 

প্রশ্ন-১৮। ওয়্যারলেস কমিউনিকেশন প্রযুক্তির উদাহরণ দাও।

উত্তরঃ রেডিও কমিউনিকেশন সিস্টেম, কর্ডলেস টেলিফোন, সেলুলার নেটওয়ার্ক, ওয়্যারলেস মাইক্রোফোন, রিমোট কন্ট্রোল, ওয়্যারলেস ইউএসবি, ওয়্যারলেস সেন্সর নেটওয়ার্ক, পার্সোনাল এরিয়া নেটওয়ার্ক, ব্লুটুথ, ওয়্যারলেস নেটওয়ার্ক, Wi-Fi ইত্যাদি।

প্রশ্ন-১৯। ফুল ডুপ্লেক্স কি?

উত্তরঃ যে মোডে একই সময়ে উভয় দিক হতে ডেটা আদান-প্রদান করা যায় তাকে ফুল ডুপ্লেক্স বলে।

প্রশ্ন-২০। ফেক্সিবল ক্যাবল এর সুবিধা কি?

উত্তরঃ ফেক্সিবল ক্যাবল এর সুবিধা হচ্ছে–

১. ঝুলানো বাতি ও পাখার কানেকশনে ব্যবহৃত হয়।

২. অস্থায়ীভাবে বাতি জ্বালানোর কাজে ব্যবহৃত হয়।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button