প্রশ্ন ও উত্তর

জীববিজ্ঞান প্রশ্ন ও উত্তর (পর্ব-৬)

প্রশ্ন-১। প্লীহার সঞ্চালনে অংশগ্রহণকারী পেশীর গঠন ব্যাখ্যা করো।

উত্তরঃ প্লীহার সঞ্চালনে অংশগ্রহণকারী পেশী হলো অনৈচ্ছিক পেশি। পেশির কোষগুলো মাকু আকৃতির। এদের গায়ে আড়াআড়ি দাগ থাকে না। এজন্য এদের মসৃণ পেশীও বলা হয়।

প্রশ্ন-২। প্রজাতি কি?

উত্তরঃ প্রজাতি হলো শ্রেণিবিন্যাসের একটি মৌলিক এবং সর্বনিম্ন একক, যা দ্বিপদ নামকরণের মাধ্যমে প্রকাশ করা হয়।

প্রশ্ন-৩। একগুচ্ছ ও বহুগুচ্ছ পরাগদন্ড কাকে বলে?

উত্তরঃ যে পরাগদন্ড এক গুচ্ছে থাকলে তাকে একগুচ্ছ পরাগদন্ড বলে। আর যে পরাগদন্ড বহু গুচ্ছে থাকলে তাকে বহুগুচ্ছ পরাগদন্ড বলে।

প্রশ্ন-৪। লসিকাতন্ত্র কি?

উত্তরঃ যে তন্ত্রের মাধ্যমে সমগ্র দেহে লসিকা রস প্রবাহিত হয় তাই হলো লসিকাতন্ত্র।

প্রশ্ন-৫। হিমোসিল কাকে বলে?

উত্তরঃ অর্থ্রোপোডা পর্বের কোনো কোনো সদস্যদের দেহে রক্তপূর্ণ গহ্বর থাকে তাকে হিমোসিল বলে।

প্রশ্ন-৬। লোকাস কি?

উত্তরঃ লোকাস (Locus) হলো ক্রোমোসোমের একটি নির্দিষ্ট স্থান যেখানে জিন অবস্থান করে।

প্রশ্ন-৭। ডোপামিন কি?

উত্তরঃ ডোপামিন হলো স্নায়ুকোষ কর্তৃক তৈরি এক ধরনের রাসায়নিক পদার্থ।

প্রশ্ন-৮। বিশুদ্ধ খাদ্য কাকে বলে? বিশুদ্ধ খাদ্যে কয়টি উপাদান থাকে?

উত্তরঃ যেসকল খাদ্যে শুধুমাত্র একটি পুষ্টি উপাদান থাকে, তাদেরকে বিশুদ্ধ খাদ্য বলে। যেমন– চিনি, গ্লুকোজ। এতে শর্করা ছাড়া অন্য কিছু থাকে না।

প্রশ্ন-১০। উদ্ভিদের খনিজ পুষ্টি কাকে বলে?

উত্তরঃ উদ্ভিদ তার বৃদ্ধি ও পরিপুষ্টির জন্য মাটি থেকে যেসব উপাদান সংগ্রহ করে সেগুলোকে উদ্ভিদের খনিজ পুষ্টি বলে। এ উপাদানগুলোর অভাবে উদ্ভিদ সুষ্ঠুভাবে বাঁচতে পারে না। এদের যেকোনো একটির অভাব হলে উদ্ভিদে এর অভাবজনিত লক্ষণ প্রকাশ পায়।

প্রশ্ন-১১। প্রাণী পরাগী ফুল কাকে বলে?

উত্তরঃ যে সকল ফুলের পরাগায়ন প্রাণীর মাধ্যমে ঘটে সেসব ফুলকে প্রাণী পরাগী ফুল বলে।

প্রশ্ন-১২। উভলিঙ্গ ফুল কাকে বলে? উভলিঙ্গ ফুলের উদাহরণ

উত্তরঃ যে ফুলে পুংস্তবক এবং স্ত্রীস্তবক দুটোই উপস্থিত থাকে তাকে উভলিঙ্গ ফুল বলে। যেমন- ধুতুরা, জবা, সরিষা ইত্যাদি।

প্রশ্ন-১৩। যুক্ত গর্ভপত্রী ফুল কাকে বলে?

উত্তরঃ যখন একটি ফুলে কতগুলো গর্ভপত্র নিয়ে একটি স্ত্রীস্তবক গঠিত হয় এবং এরা সম্পূর্ণভাবে পরস্পরের সাথে যুক্ত থাকে তখন তাকে যুক্ত গর্ভপত্রী ফুল বলে।

প্রশ্ন-১৪। ধাঙর কাকে বলে?

উত্তরঃ যেসব প্রাণী আবর্জনা ও মৃত প্রাণী খেয়ে পরিবেশ পরিষ্কার রাখে সেসব প্রাণীকে ধাঙর বলে। যেমন– হায়েনা।

প্রশ্ন-১৫। দ্বিতীয় স্তরের খাদক কাকে বলে? দ্বিতীয় স্তরের খাদক কোনটি?

উত্তরঃ যেসব প্রাণী তৃণভোজী প্রাণীদের খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করে তাদের গৌণ খাদক বা দ্বিতীয় স্তরের খাদক বলে। এরা মাংসাশী প্রাণী। যেমন- ব্যাঙ, শিয়াল, বাঘ, কিছু জলজ পতঙ্গ  ইত্যাদি দ্বিতীয় স্তরের খাদক।

প্রশ্ন-১৬। প্রচ্ছন্ন বৈশিষ্ট্য কাকে বলে?

উত্তরঃ জীবের অপ্রকাশিত বৈশিষ্ট্যকে প্রচ্ছন্ন বৈশিষ্ট্য বলে। অর্থাৎ, প্রকট বৈশিষ্ট্যের উপস্থিতিতে যেসব বৈশিষ্ট্য প্রকাশিত হয় না তাকে প্রচ্ছন্ন বৈশিষ্ট্য বলে।

প্রশ্ন-১৭। নিউক্লিওলাস কাকে বলে?

উত্তরঃ নিউক্লিয়াসের মধ্যে অবস্থিত ক্ষুদ্র, গোল, উজ্জ্বল ও অপেক্ষাকৃত ঘন বস্তুকে নিউক্লিওলাস বলে। নিউক্লিওলাস RNA ও প্রোটিন দ্বারা গঠিত। প্রতিটি নিউক্লিয়াসে একটি বা দুটি নিউক্লিওলাস থাকতে পারে।

প্রশ্ন-১৮। অ্যাম্বিলিকাল কর্ড কি?

উত্তরঃ যে নালির ভেতর দিয়ে মাতৃদেহের সাথে ভ্রূণের বিভিন্ন পদার্থের বিনিময় ঘটে সেই নালিই হলো অ্যাম্বিলিকাল কর্ড।

প্রশ্ন-১৯। পস্টুলেটেড হরমোন কাকে বলে?

উত্তরঃ উদ্ভিদের প্রাকৃতিক প্রধান হরমোনগুলি ছাড়াও আরো কিছু হরমোন আছে যাদের আলাদা করা বা শনাক্ত করা যায় না, কিন্তু উদ্ভিদের ফুল ও জনন সংশ্লিষ্ট অঙ্গের বিকাশে সাহায্য করে, তাদেরকে পস্টুলেটেড হরমোন বলে।

প্রশ্ন-২০। রক্তের লোহিত রক্ত কণিকার এক অস্বাভাবিক অবস্থাজনিত রোগ কোনটি?

উত্তরঃ থ্যালাসেমিয়া হলো রক্তের লোহিত রক্তকণিকার এক অস্বাভাবিক অবস্থাজনিত রোগ। এই রোগে লোহিত রক্তকণিকারগুলো নষ্ট হয়ে রক্ত শূন্যতার সৃষ্টি হয়। এই রোগ বংশপরম্পরায় হয়ে থাকে। দুই ধরনের থ্যালাসেমিয়া দেখা যায়– আলফা (a) ও বিটা (B) থ্যালাসেমিয়া।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button