Smartphone News

মোবাইল ফোন স্লো হয় কেন?

মোবাইল স্লো হলে কিভাবে ফাস্ট করবেন

অনেক সময় মোবাইল দীর্ঘদিন চলতে চলতে অনেক ফাস্ট মোবাইলও স্লো হয়ে যায়। কেনার সময় মোবাইল ফাস্ট থাকলেও অনেক সময় ধীরে ধীরে ফোনটি স্লো হতে থাকে।এই স্লো হয়ে গেলে ফোনে কাজ করতে খুবই অসুবিধা হয়ে থাকে।মোবাইল স্লো হয়ে যাওয়া এটা একটি বড় ইসু হয়ে দাড়িয়েছে।ফোন স্লো হলে কিভাবে ফাস্ট করবেন এই নিয়েই আজ আলোচনা করব। মোবাইলের ৮টি পয়েন্ট নিয়ে আলোচনা করব যে আটটি পয়েন্ট এর মাধ্যমে মোবাইল স্লো থাকলে ফাস্ট করা সম্ভব।

 

ফোন স্লো হলে অপারেটিং সিস্টেম আপডেট রাখা

ফোন স্লো হওয়ার পিছনে বিশেষ যে কারনটি থাকে তা হল অপারেটিং সিস্টেম আপডেট না থাকার করনে। ওএস অপারেটিং আপডেট রাখা খুবই জরুরী হয়ে থাকে।মোবাইল কোম্পানীগুলো যখন তাদের পক্ষ থেকে আপডেট দেয় এটা নিশ্চয় তাদের মোবাইল ভার্সনগুলো যেন ভালভাবে চলতে পারে তারজন্যই আপডেট দিয়ে থাকে। তাই যখনই আপনার মোবাইলে নতুন কোন আপডেট আসবে তখনই আপডেট করে নিবেন। তাতে ফোনটি ভালভাবে চলতে সক্ষম হবে এবং এতে ফাস্ট হতে সাহায্য করে।

 

ফোন ফাস্ট করতে অ্যাপ আপডেট রাখা

আমরা মোবাইলে যেসব অ্যাপ ব্যবহার করি এই অ্যাপ গুলোতে দেখবেন মাঝে মধ্যেই আপডেট করার জন্য ইনফরমেশন আসে সেক্ষেত্রে অ্যাপগুলো আপডেট করে নিবেন। অ্যাপ আপডেট না করলেও মোবাইল স্লো হতে পারে।

 

মোবাইল অতিরিক্ত স্লো হলে ফ্যাক্টরী ডাটা রিসেট দিন

আমাদের মোবাইলটি যদি অতি মাত্রায় স্লো হয়ে থাকে তাহলে অবশ্যই ফ্যাক্টরী ডাটা রিসেট দিয়ে দিন। তবে ফ্যাক্টরী ডাটা রিসেট দেওয়ার আগে মোবাইলের ব্যাকআপ নিয়ে নিন। কারন আপনি যখনই ফ্যাক্টরী ডাটা রিসেট দিবেন তখন আপনার মোবাইলে থাকা সমস্ত ডাটাই মুছে যাবে আবার নতুন ভাবে আপনাকে শুরু করতে হবে।

 

ফোনের মেমোরি স্টোরেজ ফুল হলে স্লো হয়

স্মার্টফোনে আমরা প্রয়োজনে অপ্রয়োজনে ছবি অডিও ভিডিও  রাখি ও অ্যাপ ইন্সটল করে রাখি, এতে করে আমাদের মোবাইলের মেমোরিটি অনেক সময় ফুল করে ফেলি এই মেমোরি স্টোর ফুল হওয়ার কারনে মোবাইলটি স্লো হয়ে থাকে। আমরা অবশ্যই মোবাইলের মেমোরিস্টোরি ২০% এরও বেশি খালি রাখার চেষ্টা করতে হবে। অপ্রয়োজনীয় ফাইল অ্যাপস ডিলেট করে দিতে হবে।

 

মোবাইল স্লো হলে অপ্রয়োজনীয় অ্যাপ ডিলেট করুন

প্রয়োজনে অপ্রয়োজনে আমরা মোবাইলে অ্যাপ ইন্সটল করে থাকি। বেশি বেশি অ্যাপ ইন্সটল করার কারনে এক্ষেত্রে যেটি হয় সেটা হল র‌্যাম এর কার‌্যক্ষমতা কমে যায় যার কারনে মোবাইলটি স্লো হয়ে যায়। মোবাইলকে ফাস্ট রাখতে চাইলে অপ্রয়োজনীয় অ্যাপ আনইস্টল করে রাখব। যে অ্যাপ গুলো আমাদের সাধারণত বেশি দরকার পরে না সেগুলো আনইস্টল করে দিব এবং আবার যখন প্রয়োজন পরবে তখন ইন্সটল করে নিব।

 

ব্যাটারীর কারনেও ফোন স্লো হয়

অনেক দিন যাবত ব্যাটারী চলতে থাকলে সেক্ষেত্রে বাটারীর কার্যক্ষমতা যদি কমে যায় তার কারনেও মোবাইল স্লো হতে পারে। এক্ষেত্রে মোবাইলের ব্যাটারী পাল্টিয়ে নেওয়া ভাল। অনেক সময় ব্যাটারীর কারনে মোবাইল গরম হয়ে যায় সেক্ষেত্রে মোবাইলটি স্লো হয়ে যায় এবং ব্লাস্ট হওয়ারও সম্ভবনা থাকে, যদি এরকমটা হয় তাহলে দ্রুত ব্যাটারী পাল্টিয়ে নিবেন।

 

ব্যাকগ্রাউন্ড অ্যাপের কারনে মোবাইল স্লো হয়

আমরা যখন মোবাইল কিনে আনি অনেক সময় অনেকের মোবাইলে থাকা ব্যাকগ্রাউন্ডটি পছন্দ হয় না। যার কারনে বিভিন্ন বাহারি রকমারি ব্যাকগ্রাউন্ড ব্যবহার করার জন্য অ্যাপ ইন্সটল করি। এই ব্যাকগ্রাউন্ড অ্যাপ গুলো সবসময় চালু থাকে মোবাইলে যাতে করে মোবাইলকে অনেকখানি স্লো করে ফেলে। যদি দেখেন আপনার মোবাইলটি কিছুটা স্লো আছে আর ব্যাকগ্রাউন্ড এর ওয়েলপেপার এর অ্যাপ ইন্সটল করে রেখেছেন তাহলে অবশ্যই অ্যাপ আনইন্সটল করে দিন।

 

মোবাইলের অ্যাপ রানিং এর জন্য স্লো হয়

আমাদের স্মার্ট ফোনে অনেক ধরনের অ্যাপ ইন্সটল থাকে বা নিজেরাও করে থাকি, তবে সবগুলো অ্যাপ রানিং অবস্থায় থাকে না, মানে অনেক অ্যাপ আছে আপনি ওপেন করলেই অ্যাপটি চলবে, ওপেন না করলে চলবে না। তবে কিছু অ্যাপ এর পারমিশন দেওয়া হয়ে যায় সবসময় চালু থাকবে, যদি আমরা ব্যবহার নাও করি তারপরও দেখবেন অ্যাপগুলো চলছে নিজে থেকেই। যেমন ফেইসবুক, আপনি ফেইসবুক না ওপেন করলেও দেখবেন নোটিফিকেশন আসছে আপনার কাছে, তারপর ইমুও একই ধরনের অ্যাপ, আপনি না ওপেন করলেও দেখবেন এগুলো রানিংই আছে। যেসব অ্যাপস এরকম রানিং থাকে সব সময় সেসব অ্যাপগুলোর মাধ্যমে বেশি স্লো হয় মোবাইল। মোবাইলের সেটিং এ গিয়ে অ্যাপ বা অ্যাপ মেনেজমেন্ট অপশন পাবেন সেখানে প্রবেশ করার পর দেখবেন কোন অ্যাপস গুলো রানিং আছে দেখাবে, এখান থেকে যেগুলো রানিং রাখার দরকার নেই সেগুলো ফোরস স্টপ করে রাখতে পারেন তাতে অ্যাপটি রানিং বন্ধ হয়ে থাকবে এবং পরবর্তীতে ওপেন করলেই ওপেন হবে। তাছাড়াও যতগুলো এরকম সোস্যাল মিডিয়া আছে এগুলো এরকম রানিং থাকে যতটুকু সম্ভব দরকারী ছাড়া ব্যবহার করেন না এধরনের সোস্যাল মিডিয়া গুলোকে আনইন্সটল করে রাখুন। আবার দরকার হলে ইন্সটল করে নিবেন। এতেও ফোনটি ফাস্ট হবে। আপনার মোবাইলে যদি অটো সাইন এন্ড একাউন্ট অপশন থাকে তাহলে দেখবেন এখানে অটো সাইন ডাটা অপশনটি চালু আছে আপনি চাইলে এটাও অফ করে রাখতে পারেন রিমুভ করে দিতে পারেন তাহলে অ্যাপটি রানিং থাকবে না আর প্রসেসরেও চাপ পরবে না, তাহলেও মোবাইল ফাস্ট থাকবে।

 

মোবাইল ফোন স্লো হয় কেন বা কিভাবে মোবাইল ফাস্ট করব জানলাম। যদি এই নির্দেশনাগুলো ফলো করতে পারেন তাহলে আপনার মোবাইলটি যদি স্লো হয়ে থাকে তাহলে ফাস্ট হয়ে যাবে। আজ এ পর‌্যন্তই যদি ভাল লেগে থাকে লাইক কমেন্ট শেয়ার করতে পারেন। আল্লাহ হাফেজ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button