Technology

রোবট কি? আপনি যা জানেন শুধু সেটাই কি রোবট?

রোবটের পরবর্তী প্রজন্ম

আমাদের চারপাশে অসংখ্য রোবট রয়েছে, কিন্তু আপনি কি জানেন, কিভাবে তাদের চিনবেন? আমি জানি “রোবট” (Robot) অনেক ইন্টারেস্টিং শব্দ, অনেকে এটি শোনার সাথে সাথে অবশ্যই সায়েন্স ফিকশন মুভির কথা ভাবতে আরম্ভ করে দেয়। তো এই শব্দটি সামনে আসার সাথে সাথে কোন টার্ম গুলো চলে আসে? —অবশ্যই সায়েন্স, কম্পিউটিং, ইঞ্জিনিয়ারিং— তাই না? ব্যাট রোবট আসলে কি জিনিষ? অন্তত টার্ম অনুসারে এটি কি? এটি কি এখনো সায়েন্স ফিকশন, নাকি অলরেডি অসংখ্য পরিমানে আমাদের চারপাশে রয়েছে, এই সমস্ত বিষয় গুলো এই আর্টিকেলে বিশ্লেষণ করার চেষ্টা করবো…


রোবট কি?

চলুন আমি উত্তর দেওয়ার আগে বা সম্পূর্ণ বিষয়টিকে ব্যাখ্যা করার আগে আপনাকে প্রশ্ন করি, আপনি “রোবট” বলতে কি বোঝেন? আমি নিশ্চিত করে বলতে পারি, ৮০% মানুষের উত্তর হবে, এটি এমন একটি মেশিন যা দেখতে বা যার ডিজাইন মানুষের মতো হয়ে থাকে এবং মানুষের কম্যান্ড অনুসারে এটি কাজ করে। —হ্যাঁ, আপনার উত্তর অনেকটা ঠিক, কিন্তু আপনি মাত্র এক টাইপের রোবট সম্পর্কে নির্দেশ করলেন। কিন্তু আরো অনেক টাইপের বট রয়েছে, যারা একেবারেই আলাদা, এমনকি চলাফেরাও করে না! আবার হতে পারে সেটা সামান্য একটি চিপ।

যে মেশিন কমপ্লেক্স সিরিজের কাজ গুলোকে বিশেষ করে প্রোগ্রামেবল কম্পিউটারের সাথে স্বয়ংক্রিয়ভাবে করতে পারে, তাকে রোবট বলা হয়! —এই হচ্ছে রোবটের সংজ্ঞা!

কিন্তু মানুষ যেরকমটা ভাবে, তার তুলনায় রোবট অনেক কমন ব্যাপার হতে পারে, আপনি হয়তো প্রতিদিন তাদের সাথে কাজ করেন, কিন্তু সেটা অনুধাবন না করে। আপনি যে এটিএম মেশিন থেকে টাকা উঠান, সেটি কম্পিউটার প্রোগ্রামের সাহায্যে আপনার এটিএম কার্ড চিনতে পারে এবং স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপনার ট্র্যানজাকশন সম্পূর্ণ করে, অবশ্যই এটি একটি রোবট। আজকের অনেক আধুনিক ওয়াশিং মেশিন স্বয়ংক্রিয়ভাবে কাপড় ওয়াশ করতে পারে, সংজ্ঞা অনুসারে এটিও রোবটের মধ্যেই পরে। এটিএম মেশিনকে তার কাজ করতে অবশ্যই কিছু কমপ্লেক্স কাজের সিরিজ সম্পূর্ণ করতে হয়, এটি যেকোনো এটিএম কার্ড কখনোই গ্রহন করবে না, আর এই মেশিনটি সম্পূর্ণ কম্পিউটার প্রোগ্রাম দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়ে থাকে।

তাহলে এখানে মূল কনসেপ্ট কি? যদি কথা বলি একটি ড্রোনের কথা, যেটা আপনি নিয়ন্ত্রন করে উড়াচ্ছেন, কিংবা ফটো শুট করছেন, তো সেটা কি কোন রোবট? —অবশ্যই নয়! কিন্তু চিন্তা করে দেখুন অটোনোমাস ড্রোনের কথা, যেটি নিজে থেকেই উড়তে পারে, সামনে কোন অবজেক্ট দেখলে সেটাকে বাইপাস করে আলাদা দিক দিয়ে যেতে পারে, আপনার অঙ্গভঙ্গি বুঝতে পারে এবং সে অনুসারে বিভিন্ন টাস্ক, জমন ছবি উঠানো, আপনার কাছে চলে আসা, বা আপনার থেকে দূর হতে পারে। —হ্যাঁ, এটি অনেকটা রোবটের মতো! তাহলে আসল ব্যাপারটা বুঝলেন তো? মূল মন্ত্রটি হচ্ছে কোন মেশিনের ইন্টেলিজেন্স লেভেল! যদি সে মেশিনকে নিজের এবং পরিবেশে অস্তিত্ব বুঝে তার উপর কাজ করার ক্ষমতা রাখে, সেটাকে বেশি রোবটিক বলা হবে।

আমি এই আর্টিকেলে রোবটের সম্পর্কে কমপ্লেক্স কোন আলচনা, যেমন এটি কিভাবে কাজ করে, কিভাবে প্রোগ্রাম করা হয়, এই ব্যাপার গুলো নিয়ে আলোচনা করবো না। শুধু রোবট কি, বা কতো ধরণের হতে পারে, এই বিষয় গুলোর উপরই বিস্তারিত আলোচনা করার চেষ্টা করবো।

সর্বত্রই রোবট

আগেই বলছি, আমাদের চারপাশ জুড়ে বহু রোবট রয়েছে এবং আমরা সর্বত্রই রোবটের সাথে কাজ করে যাচ্ছি। প্রায় প্রত্যেকটি শিল্পখাতে রোবটের ব্যবহার দেখতে পাওয়া যায়, বিশেষ করে অটো-মোবাইল শিল্পে, এখন তো স্মার্টফোন গুলোকেও তৈরি করার সময় বা সাজানর সময় রোবটির বাহু ব্যবহার করা হয়। মেডিক্যাল ব্যাবহারেও রোবটের ব্যবহার বেড়েছে ব্যাপক, এবং এই খাতে রোবটদের বিস্তর টাস্ক রয়েছে, সার্জারি থেকে আরম্ভ করে পুনর্বাসনে সহযোগিতা, স্বয়ংক্রিয়ভাবে হসপিটাল রুম গুলোকে জীবাণু মুক্ত করানোর জন্য বিভিন্ন রোবটদের ব্যবহৃত করা হয়ে থাকে।

কনজিউমার লেভেলেও রোবটেরা ভালো জায়গা করে নিয়েছে, এখন অনেক স্বয়ংক্রিয় রোবট আপনার ঘরের মেঝে স্বয়ংক্রিয়ভাবে পরিষ্কার করার ক্ষমতা রাখে। সাথে আমরা আরো অনেক টাইপের রোবটের সাথে প্রতিনিয়তই কাজ করে আসছি। যেমন- স্বয়ংক্রিয় কার ওয়াশার, লিফট, অনেক স্বয়ংক্রিয় ক্যামেরা, এবং অনেক কিচেন স্টাফ!

রোবটের পরবর্তী প্রজন্ম

বর্তমানের রোবট এবং এর ডিজাইন অনেক সায়েন্সের অনেক শাখাকে একত্রিত করে তৈরি করা হয়, মাকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, কম্পিউটার সায়েন্স, ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং —এই সমস্ত কিছুকে একত্রিত করে রোবট ডিজাইন করা হয়ে থাকে। নেক্সট জেনারেশন রোবটগুলো অবশ্যই আরো অত্যাধুনিক এবং এদের ইন্টেলিজেন্স লেভেল অনেক বেশি হবে। যতোদ্রুত স্মার্ট হোম এবং ইন্টারনেট অফ থিংগস এর জনপ্রিয়তা পাবে, রোবটদের ব্যবহার এবং কনজিউমার লেভেলে রোবট ততোই বেশি দেখতে পাওয়া যাবে।

ভবিষ্যৎ রোবটগুলোকে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ব্যবহার করে তৈরি করা হবে এবং নিউরাল নেটওয়ার্কের সাহায্যে এরা মানুষের মতোই চিন্তা ভাবনা করার ক্ষমতা লাভ করবে। অবশ্যই অনেক সায়েন্স ফিকশন টার্ম ব্যস্তবতার রুপ লাভ করবে, যেমন খুব দ্রুত ন্যানো বট গুলোর বিস্তর ব্যবহার হতে দেখতে পাওয়া যাবে। মাইক্রো এবং ন্যানো স্কেলের রোবট গুলোকে উন্নতি করানো হবে, যেগুলো আপনার শরীরের মধ্যে সহজেই ঢুকে চলাফেরা করতে পারবে। এই রোবটগুলো আলাদা রোবটদের সাথে যোগাযোগ করতে পারবে এবং বিভিন্ন টাস্ক কমপ্লিট করতে পারবে। এদের সবচাইতে বড় টাস্ক হবে, মানুষের শরীরের রোগ নির্ণয় করা, নির্ভুল সার্জারি করা। এই মাইক্রো এবং ন্যানো বট গুলো কি করছে, তার সম্পর্কে তার নিজের স্পষ্ট ধারণা থাকবে এবং এরা একাএকা স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারবে।


তো আর্টিকেল থেকে কি জানতে পারলেন, রোবট বর্তমানে এমন একটি ডিভাইজ, যেটা মানুষের বিভিন্ন টাস্ক গুলোকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে সম্পূর্ণ করতে পারে। যদিও সায়েন্স ফিকশন মুভি গুলোর মতো আমাদের কাছে ঐ রকম টেকের বট মজুদ নেই, তবে শীঘ্রই নতুন টাইপের এবং নতুন প্রজন্মের রোবট আমরা দেখতে পাবো! আর এখনতো অবশ্যই কল্পনা করতে পাড়ছেন, আপনার চারপাশে কতো প্রকারের রোবট রয়েছে!

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button